কিডনি বান্ধব খাদ্য ফুলকপি

কিডনি বান্ধব খাদ্য

কিডনিদ্বয় ছোট হলেও খুব শক্তিশালী যন্ত্র । অনেক কাজ করে এরা , অনেক গুরুত্ব পূর্ণ কর্ম , দুর্ভাগ্য জনক যে নানা ভাবে নানা কারনে ক্ষতি হতে পারে কিডনির । দেখা গেছে কিডনি রোগ বিশ্বের জন গোস্টির ১০ শতাংশ কে আক্রান্ত করে । কিডনি রোগ হলে অনেক সময় বিশেষ খাদ্য খেতে হয় আর খাবারে বাছ বিচার করতে হয়। কিডনি সুস্থ থাকলে রক্তে থাকে যে বর্জ্য , খাবার থেকে হয় যে বর্জ্য সেগুলো রোগ হলে বেরুতে সমস্যা হয় আর বেশির ভাগ কিডনি রোগ যখন অগ্রসর তখন খেতে হয় কিডনি বান্ধব ডা য়েট । এমন ডায়েট শরীরে এমন বর্জ্য জমা কমায় । একে অনেক সময় বলে রেনাল ডায়েট । এরা কিডনির কাজ কর্ম উজ্জিবনে সাহায্য করে আর আরও ক্ষতি নিবারন করে । কিছু উপকরন খাদ্যের করতে হয় সীমিত ।

১, । সোডিয়াম । আছে নানা খাদ্যে । টেবিল সল্টের বড় অংশ । তাই পাতে নুন নেবেন না। ক্ষতি গ্রস্ত কিডনি ফিল্টার করতে পারেনা বাড়তি লবন আর এতে বাড়ে রক্তে এর মান । তাই দিনে সর্বচ্চ হতে পারে ১৫০০ -২০০০ মিলিগ্রাম । নোনা খাবার বাদ দিন , আচার , ফাস্ট ফু ড , নিমকি , আলুর চিপস । নোনা ইলিশ । শুঁটকি ।
২। পটাশিয়ামের শরীরে অনেক কাজ । কিন্তু রোগে করতে হয় সীমিত যাতে রক্তে এর মাত্রা না বাড়ে । দিনে ২০০০ মিলিগ্রামের কম । কলাতে আছে বেশ পটাশিয়াম ।
৩। ক্ষতি গ্রস্ত কিডনি বাড়তি ফসফরাস ফিল্টার করতে পারে না । আছে নানা খাদ্যে । দিনে ৮০০ -১০০০ মিলিগ্রাম দিনে ।
৪। কিডনি রোগে সীমিত করতে হয় প্রোটিন । কারন প্রোটিন থেকে আসা বর্জ্য ফিল্টার করা কঠিন হয় । আছে প্রানিজ আর উদ্ভিজ্জ প্রোটিন । যাদের ক্ষেত্রে কিডনি রোগের শেষ পর্যায়ে পৌছায় , প্রয়োজন হয় ডাইয়ালিসিস যা কিডনির বর্জ্য পরিষ্কার করে তাদের প্রোটিন চাহিদা বেশি হতে পারে । তবা বিশেষজ্ঞ রা তা নির্ধারণ করবেন । প্রত্যেকের কিডনি রোগ ভিন্ন তাই ডায়েটিশিয়ান এর সাথে আলাপ করে রোগী তার জন্ উত্তম খাবার বেছে নেবেন ।
তবে সোডিয়াম পটাশিয়াম আর ফসফরাস কম এমন সবাদু খাবার ও আছে ।

১। প্রথম ফুলকপি । খুব পুষ্টিকর আর অনেক পুষ্টি উপকরনে সমৃদ্ধ । ভিটামিন সি , কে আর ফলেট । এক কাপ রান্না করা ফুলকপি বা ১২৪ গ্রামে আছে ১৯ মিলিগ্রাম সোডিয়াম , ১৭ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম , ৪০ মিলিগ্রাম ফসফরাস । ফুলকপি ভর্তা খাওয়া যায় আলু ভর্তার বদলে বা পটাশিয়াম কম সাইড ডিশের বদলে ।
২।রেড গ্রেপ । লাল আঙ্গুর। খুব স্বাদু । আছে প্রচুর ভিটামিন সি , আছে ফ্লাভি নয়ে ডস । আছে প্রচুর রেসভেরা ট্রল । এই ফ্লাভিনয়েড সুরক্ষা করে হার্ট আর উপকারি ডায়ে বে টি সে । আর বুদ্ধি বৃত্তিক অধোগতি ঠেকায় আর খুব কিডনি বান্ধব । অর্ধেক কাপে আছে ১.৫ মিলিগ্রাম সোডিয়াম ১৪৪ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম আর ১৫ মিলিগ্রাম ফসফরাস ।
৩। ব্লু বেরি । পুষ্টি উপকরন প্রচুর । এনটিঅক্সিডেনটস এর উত্তম উৎস । আছে আন্থ সাইসিন সুরক্ষা করে হার্ট , কিছু ক্যান্সার , ডায়ে বে টি স ।
৪। ডিমের সাদা অংশ ,। পুষ্টিকর । কুসুমে একটু বেশি ফসফরাস । আছে উচুমানের কিডনি বান্ধব প্রোটিন । ফসফরাস ডিমের সাদা অংশ কম ।
৫। মাকাদামা বাদাম । আমনড আর পিনাট ফসফরাস সমৃদ্ধ । রেনাল ডায়েটে দেওয়া যাবেনা ।
৬। কচি মোরগ । ছাল ছাড়ানো । উচ্চ মানের প্রোটিন । ৬০ মিলিগ্রাম সোডিয়াম , ২০০ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম আর ফসফরাস ।
আছে রেড বেল পেপার । স্ত্রবেরি । বাধা কপি । পেয়াজ । রসুন ।

কিডনির শত্রু । কাচা লবন । ফাস্ট ফু ড । রেড মিট । চিপস । ব্যথা নাশক ওষুধ । কোমল পানীয় । ধুম পান । মদ্য পান ।
বন্ধু । পালং শাক । আদা। হলুদ । কাল জিরে । পারস্লে শাক । ব্রকলি । আমলকী । কাল জাম । আপেল।

Prof Dr Subhagata Choudhury

Ex Principal Chittagong Medical College
Ex Dean Medicine, Chittagong University
Ex Director, Lab Service, BIRDEM

Follow us

Don't be shy, get in touch. We love meeting interesting people and making new friends.