মূত্র ধারণ অক্ষমতায় করণীয় / টয়লেট

মলে রক্তের আভাস

ওয়াইপে রক্ত দেখে আতকে না উঠে ভাবুন কেন রক্ত লাল বা কাল। রেকটাল ব্লিডিং হতে পারে নানা কারণে? পরিপাক নলের যে কোন স্থানে হতে পারে, অন্ননালি থেকে শুরু করে মলদ্বার বা এর মাঝে যে কোন স্থানে।

১। হেমরয়েডস বা পাইলস অর্শ রোগ

মলাশয় থেকে হতে পারে রক্ত ক্ষরণ। টয়লেট পেপারে তাই রক্ত। মলদ্বার আর মলাশয়ের চার পাশে শিরা ফুলে যায়, কারণ হতে পারে স্থূলতা, গর্ভধারন আর বাওয়ালের সময় জোর করলে। জরুরি অবস্থা নয়। এর সঙ্গে হতে পারে চুলকানি, ব্যাথা। এখন খাদ্যে আঁশ বেশি যোগ করলে, পর্যাপ্ত জল পান করলে, বেশি সময় বসে না থাকলে, একটু ব্যায়াম করলে ভাল হতে পারে। আছে ওভার দি কাউনটার ক্রিম আর সিয বাথ, বড় গামলায় গরম জলে যদি বসেন তাহলে লাভ হয়।

২। মলদ্বারে ফাটল বা এনাল ফিসার

মলদ্বারে চারধারে চির ধরে, কোষ্ঠবদ্ধতা আর কঠিন মল। উজ্জ্বল লাল রক্ত , বাওয়েলের সময় ব্যাথা, পরেও। খাবারে আরও আঁশ আর মল নরম করার কিছু, গরম জলে হিপ বাথ। এতে সুবিধে না হলে ডাক্তার দেবেন ক্রিম তাতে স্বস্তি পাবেন।

৩। পলিপ

কলোনে নিরীহ গ্রোথ হলে মল হলে রক্ত বেরয় না তবে ঘটবে ধীরে ধীরে। মলের রঙ বদলায়, মলের অভ্যাসে পরিবর্তন, হপ্তা দুয়েক। পলিপ পরে ক্যান্সারে রুপান্তর নিতে পারে, তাই যত দ্রুত পারা যায় এদের অপসারন কর। কলোনোস্কোপি আর ক্যান্সার স্ক্রিনিং করতে হবে।

৪। কলোরেকটাল ক্যান্সার

মলান্ত্র বা মলাশয়ে টিউমার হলে রক্ত যেতে পারে মলে ( colon or rectal tumor )। মলে রক্তের ছোপ ছোপ হতে পারে বা পরিপাক নলে উপরের দিকে সমস্যা হতে পারে। অনেক সময় রক্ত সুপ্ত থাকে। স্ক্রিনিং টেস্ট করলে ধরা পড়ে। ডায়রিয়া বা কোষ্ঠবদ্ধতা দুটোর একটি হতে পারে। পেট ব্যাথা, পেটে মোচড় দিয়ে ব্যাথা, সরু মল আর ক্লান্তি। প্রয়োজন হতে পারে সার্জারি বা কেমো বা রেডিও থেরাপি।

৫। আইবিডি বা ইনফ্ল্যামেটরি বাওয়েল ডিজিজ

হতে পারে ক্রন্স ডিজিজ ( পরিপাক নলের যেখানে ইচ্ছে প্রদাহ) বা আলসারেটিভ কোলাইটিস ( কোলন আর রেক্টামে প্রদাহ) দুটোতেই মলে যায় রক্ত, ব্যাথা, ওজন হ্রাস, ডায়রিয়া। চিকিৎসা হবে প্রদাহ কমাতে, ব্যাথা উপশম, ডায়রিয়া কন্ট্রোল, ওষুধ আর ডায়েটে পরিবর্তন। তবে সার্জারি লাগতে পারে।

৬। ডাইভারটিকুলাইটিস

অন্ত্রের দেয়ালে ছোট ছোট থলি। সঙ্ক্রমিত হলে ডাইভারটিকুলাইটিস হয়। মলের পর টয়লেট পেপারে কেবল রক্ত নয়, আরও হবে ব্যাথা, পেটে মোচড় দিয়ে ব্যাথা, জ্বর, বমি ভাব, বাথরুম অভ্যাসে পরিবর্তন, ডায়রিয়া বা কোষ্ঠবদ্ধতা। এনটিবায়টিকস আর ডায়েটে পরিবর্তন । গুরুতর হলে সার্জারি।

৭। পেপটিক আলসার

পাকস্থলী আর অন্ত্রের আস্তরনে খোলা ক্ষত। মলে গাঢ় লাল রক্ত। তবে সব আলসার রোগীর হয় না। বেশি যে উপসর্গ হয় তা ব্যাথা, বুক জ্বলা, ঢেঁকুর, বমি ভাব। লাগতে পারে এনটিবায়টিকস, আর অম্ল দমনের ওষুধ। এনএসআইডি খেলে বন্ধ করা, এরা পরিপাক নলের দুশমন। মল আলকাতরার মত হলে, মাথা হাল্কা লাগলে সত্বর ইমারজেন্সি।

৮। অন্ননালিতে সমস্যা

যে নল যায় গলা থেকে পাকস্থলীতে, সেখানে সমস্যা হলে মলে রক্ত দেখা যেতে পারে।কারণ GERD ( Gastro-esophageal reflux disease)। আর এবার হতে পারে তা মদ্যপায়িদের মধ্যে। লিভার সমস্যা।

৯। বাওয়েল হলে উজ্জ্বল, রক্ত দেখা দিলে সামান্য

তেমন বড় সমস্যা নয়। অন্য সমস্যা আছে কিনা: ম্যারুন বা কাল মল, বেশি রক্ত গেলে, মাথা হাল্কা লাগলে আর ধুকপুক করলে ইমারজেন্সি।

Prof Dr Subhagata Choudhury

Ex Principal Chittagong Medical College
Ex Dean Medicine, Chittagong University
Ex Director, Lab Service, BIRDEM

Add comment